মাতৃভাষা দিবসে হাতিয়া দ্বীপে অন্ধজনে আলো দান

নোয়াখালী বার্তা | ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ | ১০:১৯ পূর্বাহ্ণ |আপডেট: ২২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ | ১০:১৯

হাতিয়া প্রতনিধি: বিপন্ন হাতিয়া দ্বীপ, নোয়াখালীর মূল ভূখণ্ড থেকে বিচ্ছিন্ন এ দ্বীপে দেশের অন্য স্থান থেকে অন্ধত্বের হার বেশি হলেও চিকিৎসার তেমন সুযোগ নেই। এ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ‘অন্ধজনে দেহ আলো’ এ স্লোগানকে সামনে রেখে চক্ষু চিকিৎসা শিবিরের আয়োজন করেছে দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থা।

পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) ভিশন আই হসপিটাল, রোটারি ঢাকা ও লায়ন্স ক্লাব নোয়াখালীর সহায়তায় এ শিবিরে চিকিৎসা দেয়া হয় প্রায় পাঁচ শতাধিক চক্ষু রোগীকে। নেত্রনালী ও ছানি অপারেশন করা হয় শতাধিক রোগীকে।

দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, হাতিয়া দ্বীপের প্রত্যন্ত অঞ্চল নিঝুম দ্বীপ, নলের চরসহ অন্যান্য এলাকা থেকে চোখের রোগীদের তালিকা করে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। প্রাথমিক ছোট অপারেশনগুলো চক্ষু চিকিৎসা শিবিরেরই করা হবে। বড় অপারেশনগুলো দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থার নিজস্ব খরচে রাজধানীর ভিশন আই হসপিটালে করানো হবে।ছবি: কমবুধবার ২১ ফেব্রুয়ারি সকাল ৯টা থেকে শুরু হয়ে বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলে এ চক্ষু চিকিৎসা শিবির।

সকাল ৯টায় হাতিয়া উপজেলা সদরের ওছখালীতে দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থার প্রধান কার্যালয়ে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহবুব মোর্শেদ লিটন।

সংস্থার প্রোগ্রাম অফিসার নুসরাত হায়দার ইমার সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে এসময় বক্তব্য রাখেন- উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) খোন্দকার রেজাউল করিম, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নাজিম উদ্দিন।

এছাড়া বক্তব্য রাখেন- ভিশন আই হসপিটালের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ডা. মো. সিদ্দিকুর রহমান, রোটারি ক্লাব অব ধানমন্ডির প্রেসিডেন্ট ইলেক্ট ডা. মনিরুল আলম।

সমাপনী বক্তব্য রাখেন- দ্বীপ উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মো. রফিকুল আলম।

এছাড়া চিকিৎসক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ডা. মো. মাহমুদুল হাসান, ডা. মো. আরিফুল ইসলাম, ডা. মো. কেএম সেলিম মাহমুদ প্রমুখ।

Please follow and like us:
0

এরকম আরো সংবাদ