হাতিয়ায় জেনেরেটর বিকলের ছয়দিনেও বিদ্যুৎ পায়নি গ্রাহকরা

দৈনিক নোয়াখালীবার্তা | ৪ নভেম্বর, ২০২০ | ১৫:১৩ অপরাহ্ণ |আপডেট: ৪ নভেম্বর, ২০২০ | ১৫:১৩

স্টাফ রিপোর্টার: নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ায় এক হাজার মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন একটি জেনেরেটরের ইঞ্জিন বিকল হয়ে গত ছয়দিন বিদ্যুৎ সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছেন গ্রাহকরা। এতে দ্বীপ এলাকার কয়েক হাজার গ্রাহকের দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে।
হাতিয়ার বিদ্যুৎ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী ও আবাসিক প্রকৌশলী মো. মশিউর রহমান বলেছেন, একটি জেনেরেটরে যান্ত্রিক ক্রুটির কারণে গত ৩০ অক্টোবর রাত থেকে এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে।
হাতিয়া বিদ্যুৎ অফিস সূত্রে জানা যায়, ৫০০ কেভির ৪টি জেনারেটর ইঞ্জিন পরপর নষ্ট হয়েছে। সর্বশেষ গত শুক্রবার এক হাজার মেগাওয়াটের ইঞ্জিনটিও বিকল হয়ে পড়ে। ফলে এ উপজেলার সর্বত্র বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়। শুধুমাত্র ৫০০ কেভির একটি ইঞ্জিন জেনারেটর দিয়ে উপজেলা পরিষদ এলাকায় নামে মাত্র বিদ্যুৎ সরবরাহ হচ্ছে। এতে করে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন বিদ্যুৎ গ্রাহকেরা। ইতোমধ্যে ফ্রিজের সংরক্ষিত বিভিন্ন সামগ্রী ও জরুরী ওষুধপত্র নষ্ট হতে চলেছে। কম্পিউটার, ফটোস্ট্যাটসহ বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম পুরোপুরি বন্ধ হয়ে পড়েছে। ফলে গ্রাহকরা পড়েছে চরম দুর্ভোগে।
স্থানীয় এক রেস্টুরেন্টের মালিক বলেন, গত কয়েকদিন বিদ্যুৎ সমস্যার কারণে তার ফ্রিজে থাকা মাছ, গোস্ত, মসলাসহ প্রায় ৩০হাজার টাকার জিনিসপত্র নষ্ট হয়ে গিয়েছে। একই দুর্ভোগের কথা জানালেন অন্য একটি হোটেলের মালিক আয়াত হোসেন জুয়েল।
ফলের আড়তদার জাকের হেসেন বলেন, আমরা ঢাকা থেকে ফল এনে এখানে ফ্যানের মাধ্যমে কুলিং সিষ্টেম করতে হয়। গত কয়েকদিন কারেন্ট না থাকায় আমার প্রায় ৫লক্ষ টাকার উপরে ফল পচে নষ্ট হয়ে গেছে।
উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী ও আবাসিক প্রকৌশলী মো. মশিউর রহমান জানান, ইঞ্জিন মেরামতের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। আগামী শুক্রবার ইঞ্জিন মেরামতের কাজ শুরু হবে। ইঞ্জিন মেরামত করে বিদ্যুৎ চালু করতে আরো ১০-১৫ সময় লাগতে পারে। এদিকে বিদ্যুৎতের চাহিদা সহনীয় করতে পার্শবর্তী সন্দ্বীপ উপজেলা থেকে এক হাজার মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন একটি জেনেরেটর সংযোজন করার প্রক্রিয়া হাতে নেওয়া হয়েছে।

Please follow and like us:

এরকম আরো সংবাদ