নোয়াখালী বেগমগঞ্জে দুই গ্রুপ সন্ত্রাসীদের মধ্যে সংঘর্ষ- গোলাগুলি, আটক ১৫

দৈনিক নোয়াখালীবার্তা | ৭ এপ্রিল, ২০২১ | ১৩:০৯ অপরাহ্ণ |আপডেট: ৭ এপ্রিল, ২০২১ | ১৩:০৯

ষ্টাফ রিপোর্টার :  নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে দুই গ্রুপ সন্ত্রাসীদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে।
এ সময় হামলা পাল্টা-হামলা, গোলাগুলি এবং ককটেল বিস্ফোরণে দুইপক্ষের অন্তত ১৬ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে এবং দুটি মোটরসাইকেলে আগুন ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ভাঙচুরের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৫ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।
মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত থেমে থেমে চৌমুহনী পৌরসভার চৌমুহনী রেললাইন এলাকায় এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। তবে তাৎক্ষণিক আহতদের নাম ঠিকানা পাওয়া যায়নি।
স্থানীয়দের ভাষ্যমতে, পূর্ব বিরোধের জেরে চৌমুহনী পৌর এলাকার গণিপুরের বাসিন্দা আওয়ামী লীগ কর্মী টিটু ও করিমপুর এলাকার প্রান্তের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। তারপর পূর্ব বিরোধের জেরে চৌমুহনী বাজারে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে মঙ্গলবার রাতে রেললাইন এলাকায় টিটু ও প্রান্ত গ্রুপের অনুসারীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ভুট্টু মার্কেটের সামনে সাবেক মেয়র ফয়সাল অনুসারী কাউন্সিলর জাহাঙ্গীরের লোকজন এমপি কিরন গ্রুপের শিহাবকে তার সাথে থাকা লোকজনসহ ঘেরাও দিয়ে তাদের দুটি মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয়।
এক পর্যায়ে দু’গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে গেলে গোলাগুলি, ককটেল বিস্ফোরণ, মোটরসাইকেলে অগ্নিসংযোগ ও দোকান ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। রাত সাড়ে ১০টার দিকে চৌমুহনী বাজারের ডিবি রোডের পাশে হোসেন মার্কেটের ওপর থেকে গুলি ছোঁড়ার ঘটনাও ঘটে। এ সময় দু’পক্ষের ১৬ জন অনুসারী আহত হয়েছে বলে জানা যায়।
এ বিষয়ে জানতে নোয়াখালী-৩ আসনের সংসদ সদস্য মামুনুর রশীদ কিরন এমপির ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।
বেগমগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ কামরুজ্জামান সিকাদার জানান, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে ১৫ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

Please follow and like us:

এরকম আরো সংবাদ