নোয়াখালীতে প্রবাসীর স্ত্রীকে উত্যক্ত করায় ব্যবসায়ী খুন ( মা ও ছেলে গ্রেফতার )

নোয়াখালী বার্তা ডেস্ক | ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ১৭:৪৩ অপরাহ্ণ |আপডেট: ৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ১৭:৪৩

নোয়াখালী থেকে অহিদ উদ্দিন মুকুল : নোয়াখালীর চাটখিল উপজেলায় ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ী শাহ আলম (৬০) হত্যাকান্ডের ১২ ঘন্টার মধ্যে খুনের রহস্য উদ্ঘাটন করেছে পুলিশ । প্রবাসীর স্ত্রী ঈয়াসমিন আক্তারকে উত্যক্ত করায় ঐ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছে ।

উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের কুলশ্রী গ্রামের কুয়েত প্রবাসী মো: শাহ আলমের স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তার ( ৩৮ ) ও তার ছেলে ইয়াছির আরাফাত শান্তম ( ১৯) কে গ্রেপ্তারের মধ্য দিয়ে আলোচিত এ হত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচিত হয় ।

এর আগে বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রেপ্তারকৃত ইয়াসিমন ও শান্ত নোয়াখালীর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শোয়েব উদ্দিন খান ও মুশফিকুল হকের আদালত ফৌজদারী কার্যবিধি ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দিয়েছেন ।

পুলিশ সুপার আলমগীর হোসেন বলেন, নিহতের মেয়ে শারমিন আক্তারের দেওয়া তথ্যমতে মঙ্গলবার ( ০৩ সেপ্টেম্বর ) দিবাগত রাত ১১টায় দিকে নিহত শাহ আলমের মোবাইলে একাধিকবার কল আসে । এর কিছুক্ষণ পর তিনি ঘরের দরজা বাহির থেকে লাগিয়ে বাহিরে চলে যান । পরে রাত থেকে সকাল পর্যন্ত তিনি আর বাড়ি ফিরে যাননি । ওই তথ্যের সূত্র ধরে প্রযুক্তি সহায়তায় ঘটনার সঙ্গে জড়িত চাটখিল উপজেলার কুলশ্রী গ্রামের শাহ আলমের স্ত্রী ইয়াসমিন আক্তার ও তার ছেলে ইয়াছির আরাফাত শান্তকে গ্রেফতার করে পুলিশ ।

পুলিশ সুপার বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে ইয়াসমিন আক্তার স্বীকরোক্তিতে বলেন ক্ষুদ্র ব্যাবসায়ী শাহ আলম মোবাইল ফোন দিয়ে প্রায় তাকে বিরক্ত করতো এবং গভীর রাতে তদার বসদ ঘরের দরজা জানালায় টোকা দিত । এ বিষয়ে ইয়াসমিনের ছেলে ভিকটিম শাহ আলমকে মুঠোফোনে শাসিয়ে দিলেও শাহ আলম ইয়াসমিনকে উত্যক্ত অব্যহত রাখে ।

পরে ইয়াসিমন তার ছেলে শান্তের সাথ আলাপ করে শাহ আলমকে শিক্ষা দেওয়ার পরিকল্পনা করেন । পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ইয়াসমিন মঙ্গলবার দিবাগত রাতে মোবাইল ফোনে শাহ আলমকে তার বাসায় ডাকেন। এ সময় ইয়াসমিনের ছেলে এবং তার বন্ধুরা শাহ আলমের চলার পথে ওৎ পেতে থাকে । ইয়াসমিনের পোন পেয়ে ভিকটিম শাহ আলম ইয়াসমিনের বাড়ির দিকে যাওয়ার পথে কুলশ্রী গ্রামের আবুল কালামের দোকানের সামনে আসলে ইয়াসমিনের ছেলে শান্ত ও তার বনন্ধুরা শাহ আলমকে পিটিয়ে আহত করে দোকোনের সামনে আসলে ইয়াসমিনের ছেলে ও তার বন্ধুরা শাহ আলমকে আটক করে দোকন ঘরের পিছনে নিয়ে পিটিয়ে আহত করে পালিয়ে যায় । এতে শাহ আলমের মৃত্যু হয় । হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার অপর আসামীদের ধরার ব্যাপারে পুলিমের অভিযান অব্যহত রয়েছে ।

০৫.০৯.২০১৯ ইং

Please follow and like us:
error0

এরকম আরো সংবাদ